শনিবার ৩১ জুলাই ২০২১

১৫ শ্রাবণ ১৪২৮

ই-পেপার

কায়সার আহমেদ

এপ্রিল ২৬,২০২০, ০২:০১

সময়ের বহুল আলোচিত শব্দ ডেটা ও ডেটাবেজ!

 

একটু পেছনে ফিরে যদি নব্বই দশকের কথা বলি। তাহলে দেখা যাবে অফিস-আদালত, প্রশাসনিক দপ্তর থেকে শুরু করে দেশের প্রতিটি সেক্টর ছিলো কাগজের নথিপত্রের গোডাউন। কোনো কর্মকর্তার কাছে তথ্যের জন্য শরণাপন্ন হলে তা খুব সহজে পাওয়া যেত না। দিনে পর দিন কিংবা এরও বেশি সময় লেগে যেত। কিন্তু আধুনিকায়নের ফলে তা সহজ থেকে সহজতর হয়ে উঠেছে। কম্পিউটারের যুগে জটিলতা নেই বললেই চলে। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে দাপ্তরিক জটিলতা কমিয়ে আনতে Data (উপাত্ত) ও Database (তথ্যের সমাবেশ) এর গুরুত্ব অসামান্য। এ দুটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন কায়সার আহমেদ-

Data (উপাত্ত): বর্তমান যুগে আমরা হর হামেশাই ব্যবহার করে থাকি Data শব্দটা। এই Data শব্দটি ল্যাটিন Datum শব্দ থেকে এসেছে। Datum শব্দের অর্থ তথ্যের উপাদান। আবার Processed Information কে ও ডাটা বলা যায়।

Data সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত ধারণা পাওয়া গেল। অন্যদিকে Base হলো সমাবেশ বা ঘাঁটি। সেক্ষেত্রে Database এর পূর্ণরূপ হলো 'তথ্যের সমাবেশ'। এটি এমন একটা সমাবেশ যেখানে তথ্য সুশৃঙ্খলভাবে সাজানো থাকে।

এই Database এর দরকার কি?

Database তথ্যকে কলাম ও সারির সাহায্যে সুশৃঙ্খলভাবে সাজিয়ে রাখে। তাই এটার দরকার বা প্রয়োজন অপরিসীম। আপনি একবার ভেবে দেখুন, আপনার কাছে ১০ বা ২০ জন লোকের তথ্য আছে। সেটা আপনি এলোমেলো করে কোথাও লিপিবদ্ধ করে রাখলেও যেকোন সময় সে তথ্য আপনি পুনরুদ্ধার করতে পারবেন। কিন্তু আপনার কাছে যদি ১ থেকে ২ লাখ কিংবা কোটি কোটি উপাত্ত থাকে তখন আপনি সেটা কিভাবে, কোথায় লিপিবদ্ধ করবেন? আর প্রশ্নটা এখানেই!

এতএত তথ্য এলোমেলোভাবে লিপিবদ্ধ করে আপনার তথ্য সংরক্ষণ করতে পারবেন, ঠিক আছে! কিন্তু সেখান থেকে কোন ফলাফল পাবেন না আপনি। কারণ এভাবে Data বা তথ্য রাখলে প্রয়োজনের সময় নির্দিষ্ট তথ্য আপনি কখনোই খুঁজে পাবেন না। তাই আপনার কাঙ্খিত তথ্য-উপাত্ত কোন কাজে ব্যবহার করতে পারবেন না।

সেক্ষেত্রে ডেটাবেজ আপনাকে বন্ধুর মতো সহযোগিতা করবে। সেক্ষেত্রে সামান্য কিছু জ্ঞান ব্যবহার করে আপনিও সহজে ডেটাবেজ কন্ট্রোল করতে পারবেন। তবে একদম পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে এটা নিয়ন্ত্রণ করার জন্য প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সেসব বিষয়ে জানতে হবে। সেগুলো পরে আলোচনা করা হবে।

ডাটাবেজ গঠনগত দিক থেকে ২ ধরনেরঃ

১। সাধারণ ডেটাবেজ ও
২। রিলেশনাল ডেটাবেজ।

ডেটাবেজ ব্যবহার ক্ষেত্র:

শিল্প-কারখানা, ব্যাংক-বীমা, অধিক জনশক্তি সম্পন্ন প্রতিষ্ঠান সহ প্রচুর তথ্যের আদান-প্রদান হয় এমন প্রতিষ্ঠানসমূহে এর ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। আধুনিক সভ্যতার এ যুগে এখন ছোট ছোট প্রতিষ্ঠান গুলোও ডাটাবেজ এর দিকে ঝুকছে। যেটি আগামী প্রজন্মের জন্য ফলপ্রসূ একটি বিষয়।

POST COMMENT

For post a new comment. You need to login first. Login

COMMENTS(0)

No Comment yet. Be the first :)